রবিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯, ১২:৪৬ অপরাহ্ন

News Hewdline :
আগামী বছরের মধ্যেই শতভাগ মানুষ বিদ্যুৎ সুবিধা পাবে নিজেও কাঁদলেন, প্রধানমন্ত্রীকেও কাঁদালেন বহিষ্কার যেন স্থায়ী হয়: আবরারের বাবা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৩তম জন্মদিন আজ রাষ্ট্রের স্বার্থ রক্ষার্থে সরকার যখন যে সিদ্ধান্ত নেবে তা বাস্তবায়ন করবে র‌্যাব “অদম্য বাংলাদেশ” সংগঠনের উদ্যোগে শেখ হাসিনার ৭৩তম শুভ জন্মদিন উদযাপন হাশেমিয়া কামিল মাদ্রাসা ছাত্রলীগের উদ্যোগে প্রধানমন্ত্রীর জন্য দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত মাহাত্মা গান্ধী ছিলেন আশার বাতিঘর,অন্ধকারে আলো এবং হতাশায় ত্রাণকর্তা : প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু স্মৃতি সেবা ফাউন্ডেশন ঈদগাঁহ ইউনিয়ন শাখার অনুমোদন কক্সবাজার জেলা বাস-মিনিবাস মালিক সমিতির জরুরি সভা অনুষ্ঠিত
চকরিয়ায় মাদ্রাসার ছাত্রদের দিয়ে জামায়াত নেতাদের জমি দখলের চেষ্টা

চকরিয়ায় মাদ্রাসার ছাত্রদের দিয়ে জামায়াত নেতাদের জমি দখলের চেষ্টা

ওসমাণী রাকিব :

কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার উত্তর লক্ষ্যারচর ইউনিয়নের ৩ নং  ওয়ার্ডস্থ চকরিয়া ডিগ্রি কলেজ সংলগ্ন আমজাদিয়া চৌধুরী পাড়া এলাকায় নুরুল আবছার নামক এক স্থানীয় বাসিন্দার মালিকানাভুক্ত জায়গা জোর পূর্বক দখলের প্রচেষ্টা চালিয়েছে উক্ত এলাকার আমজাদিয়া দাখিল মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক,সহকারী প্রধান শিক্ষক ও জামায়াতের এক আমির। গত ২ সেপ্টেম্বর দ্বিপ্রহর এর দিকে এই ঘটনা সংঘটিত হয়। জায়গা দখলের জন্য শক্তি-সামর্থ্য স্বরূপ জামায়াতের আমির সাবের ও দুই জামায়াত নেতা মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক জহির উদ্দিন ইলিয়াস ও সহকারী প্রধান শিক্ষক ফয়েজ উল্লাহ মাদ্রাসার ছাত্রদের সাথে নিয়ে এসে জায়গাটির চারপাশ ঘেরাও করে ফেলে। পরবর্তীতে খবর পেয়ে ভুক্তভোগী নুরুল আবছারের পরিবার ও কয়েকজন স্থানীয় বাসিন্দা এসে বাধা দেয়ায় জামায়াত নেতাদের দখল প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়।

 ঘটনা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চাইলে নুরুল আবছার পরিবারের একজন সদস্য জানায়, “কাগজে কলমে ক্রয়সূত্রে এই জায়গার প্রকৃত মালিক নুরুল আবছার এবং জায়গাটির পরিমাণ ১০ শতক। জায়গাটির সকল ডকুমেন্টস তাদের কাছে রয়েছে। মাদ্রাসা সংলগ্ন ও রাস্তার পাশে হওয়ায় জায়গাটি হাতিয়ে মাদ্রাসার অন্তর্ভুক্ত করার মিথ্যা কাহিনি বানিয়ে নিজেদের নামে দখল নিতে চাইছে উক্ত জামায়াত নেতারা। তার সাথে কথা বলে আরও জানা যায় যে, জায়গাটিতে জলাশয়ের মতো একটি অংশ রয়েছে। সে অংশ ভরাট করে চাষাবাদ করার পরিকল্পনা ছিলো নুরুল আবছারের। সেসূত্রে প্রায় ১ মাস আগে সে জায়গাটি বালু দিয়ে ভরাট করতে গেলে প্রধান শিক্ষক জহির উদ্দিন ও সহকারি প্রধান শিক্ষক ফয়েজ তাদের সাথে লোকবল নিয়ে সেই কাজে বাধা দেয় এবং ১০ শতকের পুরো জায়গাটি তাদের মাদ্রাসার জায়গা বলে দাবী করে চাষাবাদের কাজ বন্ধ করতে বাধ্য করে। বিষয়টি নিয়ে কোন্দল বাড়তে থাকলে কিছুদিন পর বিরোধ মীমাংসার জন্য অত্র ইউনিয়নের জামায়াত সমর্থিত চেয়ারম্যান কাইসার আহমেদের নিকট গেলে তিনি এই বিরোধ মীমাংসা করতে অস্বীকৃতি জানান এবং মৌন সম্মতি অবলম্বন করেন।

এরপর বেশ কয়েকবার থানা পুলিশের কাছে গিয়েও কোন সুফল পাননি নুরুল আবছার। বিষয়টি নিয়ে চেয়ারম্যান কাইসার ও প্রধান শিক্ষক জহির উদ্দিনের সাথে ফোনে আলাপ করতে চাইলে তাদের কাউকেই ফোনে পাওয়া যায়নি। জামায়াত নেতাদের সম্মিলিত এই দখল প্রচেষ্টার সময় প্রত্যক্ষদর্শী এলাকার একজন সচেতন বাসিন্দার সাক্ষাৎকারে তিনি জানান, “শিক্ষক হয়ে মাদ্রাসার ছাত্রদের দিয়ে অন্যজনের ব্যক্তিগত জায়গা দখল করতে আসাটা নিন্দনীয় ও ন্যাক্কারজনক ব্যাপার। এখানে শিক্ষার্থীদের রাজনৈতিকভাবে ব্যবহার করা হয়েছে। এমন ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটলে শিক্ষকদের কারণে শিক্ষার্থীদের নৈতিক অবক্ষয় ঘটবে।” সর্বোপরি, কারও কাছ থেকে সুষ্ঠু বিচার না পেয়ে বিরোধ মীমাংসার জন্য গত ৩ সেপ্টেম্বর চকরিয়া কোর্টে মামলা দায়ের করেন নুরুল আবছার।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *